"/> অন্তর্জাল
আমেরিকা
বার্ডস আই ভিউ থেকে কিভাবে ইলেকশন দেখবেন
-11/11/2016





 

মি এই নির্বাচনে বার্নী স্যান্ডার্সের সাপোর্টার ছিলাম । তার ক্যাম্পেইনে শ খানেক ডলার দান করেছি । তাই শুধু মুখে মুখে তার সাপোর্টার ছিলাম না । বার্নী স্যান্ডার্সকে যখন হারানো হলো তখন আমার এই নির্বাচন নিয়ে কোন আগ্রহ ছিলো না । ডিটাচ হবার কারনে আমি বিচিত্র কিছু ব্যাপার খেয়াল করলাম যেটা আগে করিনি ।

হিলারীর বিপক্ষে লড়ার সময় হিলারীর সব গুণ গুলো নজরে পড়ছে , ডিটাচ হবার কারনে নিরপেক্ষ ভাবে বিচার করতে পারলাম । দেখলাম ট্রাম্পকে উন্মত্ত কুকুর বানানো একটা লিবারেল মিডিয়ার চাল ছাড়া কিছু নয় ।

একজন মিসোজনিস্ট একজন যুদ্ধবাজ নেতা হতে অনেক উত্তম ।
কিন্তু সো কলড লিবারেল মিডিয়া কখনো সে রাস্তায় হাটেনি । তারা কোন প্রগ্রেসিভ চিন্তা প্রচার করেনি ।
তারা ব্যস্ত ছিলো ট্রাম্পকে উন্মত্ত কুকুর প্রমান করতে । আমি মিডিয়ার আচরন খুব ক্লোজলি ফলো করি , আর নিজেকে একজন বিশেষজ্ঞ দাবি করি ।

মিডিয়ার এই আচরনকে প্রশ্ন করতে গিয়ে নিজের আশেপাশে থাকা সব ছদ্ম প্রগ্রেসিভদের মুখোশ খুলে পড়তে লাগলো । এরা আবার আমাদের লিবারেল দাবী করা মানুষদের গুরু ।

প্রথমেই বিল মার , যদিও ইসলামোফোব হিসাবে তার পরিচয় অনেক আগেই উদ্ভাসিত আমার কাছে । ওভার দ্য টপ , রিপাবলিকান আর সাধারন মানুষের প্রতি ঘৃণাও জানা আছে । তার নেতানিয়ানহু আর ইসরায়েল প্রেম দেখা আছে ।

বিল মার পরবর্তিতে নিজের ভুল বুঝতে পেরেছিলো । সে বলেছিলো রিপাবলিকানদের এইভাবে আক্রমন করা আমাদের উচিত হয়নি ।

এখানে একটা গুরুত্বপূর্ন শিক্ষা মনে রাখেন , লিবারেল মিডিয়াও প্রপাগান্ডা ছড়ায় আর দিনের পর দিন এসব দেখতে থাকলে আপনি নিজেও প্রপাগান্ডার স্বীকার হয়ে যাবেন । যেমন লিবারেল মিডিয়া শুরু করেছিলো , ট্রাম্প তার নিজের মেয়ের প্রতি আসক্ত এইরকম একটা কথা ছড়ানো শুরু করেছিলো । এইরকম খন্ডাংশ ছড়ানো কোনো প্রগ্রেসিভ মিডিয়ার কাজ না । ট্রাম্পের পলেসিকে আক্রমন করার কথা ছিলো তার ব্যক্তিগত জীবন আচরন নয়। বিল মার অবশ্য প্রাইমেরিতে বার্নির সাপোর্টার ছিলো , সে জন্য তাকে কিছুটা হলেও ছাড় দেই আমি ।

এরপর আসে , ডেইলী শো । এটাও আমাদের তরুন লিবারেলদের অনেক পছন্দের শো । জন স্টুয়ার্ট চলে যাওয়ার পর এই শো এর মান অনেক কমে গেছে । ট্রেভর নোয়া নামের সাউথ আফ্রিকান কমেডিয়ান এখন এই শো চালায় । এই শো প্রথম থেকেই হিলারীর পক্ষে ছিলো । বার্নী স্যান্ডার্সকে নিয়ে হিট জব করেছে এই শো ।

এগুলোতে মযে থাকলে কখনো এদের প্রপাগান্ডা ধরতে পারবেন না । ধরা যাক এরা জোকের মাধ্যমে একটা কথা বল্লো সেটা কপ করে গিলে ফেলবেন না । তথ্যটা আগে যাচাই বাছাই করবেন ।
সবার আগে যেটা করতে হবে সেটা হলো , রাইট উইং হৌক আর লেফট উইং হোক , তথ্য সত্যতা যাচাই করতে হবে বায়াসড না হয়ে ।

শেষে আসে অনেক নিরপেক্ষ বলে পরিচিত , জন অলিভার শো। এরাও হিলারীর প্রেমে মত্ত হয়ে থার্ড পার্টি ক্যান্ডিডেটদের নিয়ে কুৎসাকে কমেডি হিসাবে চালাতে চেষ্টা করে ।

নিজেকে যেকোন প্রপাগান্ডা থেকে বাচানোর জন্য এই ইলেকশন একটা গুরুত্বপূর্ন পর্যবেক্ষন ক্ষেত্রে । বিশেষ করে লিবারেল মিডিয়া যেভাবে হ্যাক জব করছে সেগুলো বিশ্লেষন করলে আমরা অনেকখানি ধারনা করতে পারবো আমাদের কোন পথে হাটতে হবে ।

ট্রাম্পকে উন্মত্ত কুকুর প্রমান করাটা লিবারেল মিডিয়ার নিজস্ব বায়াস ছিলো । এটা তাদের উপর ব্যাকফায়ার করেছে । কখনো নিজেকে প্রগ্রেসিভ দাবী করে গরীব দুঃখী কষ্টে থাকা মানুষের অধিকার নিয়ে ছিনিমিনি খেলবেন না ।