"/> অন্তর্জাল
আইন-আদালত
আইন সবার জন্য সমান নয়
প্রবীর বিধান -11/16/2016





র্তমান সরকারের আমলে আব্দুর রহমান বদিই একমাত্র সংসদ সদস্য যে কিনা কোন মামলায় দন্ডপ্রাপ্ত হয়েছে। সপ্তাহখানেক জেল খেটে আজ সে আবারো জামিনে মুক্ত হলো!

দুঃখের বিষয় হলো তাকে তার সম্পদের তথ্য গোপন করায় দুদকের একটি মামলায় তিন বছরের জেল দিয়েছেন আদালত। আর অবৈধ সম্পদ অর্জ
নের অভিযোগ প্রমাণ করতে পারেনি আইনজীবীরা! টাকার অংকও যে কমিয়ে দেখানো হয়েছে তা বলার অপেক্ষা রাখেনা। এই মামলায় বিচারিক আদালতের রায়কে চ্যালেঞ্জ করে ইতিমধ্যে আপিল করেছে বদি।

এই মুহূর্তে দেশের সবচেয়ে বড় ইয়াবা ব্যবসায়ি হলো এই বদি, যার বাবা ছিল একজন রোহিঙ্গা, যে কিনা বাংলাদেশে এসে বিভিন্ন অপরাধমূলক কাজে জড়িয়ে এলাকায় প্রভাবশালী বনে যায়। তাছাড়া মায়ানমার থেকে বিভিন্ন পণ্য চোরাচালানের অন্যতম হোতা সে।

মাদক নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর ও বিভিন্ন গোয়েন্দা প্রতিবেদনে বদি ও তার পরিবারের সদস্যরা শীর্ষ স্থানে আছে। তবে গত বছর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এক প্রকাশ্য সভায় বদির ইয়াবা ব্যবসার প্রমাণ নেই বলে দাবী করেছেন!

এর বাইরে কক্সবাজার থেকে ট্রলারে করে গরীব মানুষদের, বিশেষ করে রোহিঙ্গাদের, থাইল্যান্ড, মালয়েশিয়া, অস্ট্রেলিয়ায় পাঠানোর ব্যবসাও রমরমা।

পাশাপাশি রোহিঙ্গাদের অবৈধ পরিচয় পত্র, পাসপোর্ট ইস্যু করা এবং জঙ্গি তৎপরতা সহ বিভিন্ন অপরাধমূলক কাজে জড়িত করার প্রমাণ বিভিন্ন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কাছে আছে। এসব তথ্য দেশের প্রথম সারির দৈনিকে আসলেও টিভি চ্যানেলের মালিক ও সাংবাদিকরা দর্শকদের এসব বিষয়ে অন্ধকারে রাখতেই বেশি আগ্রহী।

আর আওয়ামীলীগের প্রধান এমন একটা ভাব নেন যেন বদি ধোয়া তুলসিপাতা। তাই আগে বিএনপি করা এই বদিকে তিনি মাদক মামলায় গ্রেপ্তার করতে চান না। দল থেকে বহিষ্কার করছেন না!

মোরাল অব দ্যা স্টোরি: আইন সবার জন্য সমান নয়।